1. successrony@gmail.com : Mehedi Hasan Rony :
  2. rj.nazmul2500@gmail.com : Nazmul Hossain : Nazmul Hossain
বুধবার, ২৮ অক্টোবর ২০২০, ০২:৪৫ পূর্বাহ্ন

কাজ শেষ না হলেও তড়িঘড়ি উদ্বোধন করা হয়েছে জামালপুর ডায়াবেটিস হাসপাতাল ভবন

মেহেদী হাসান, জামালপুর।
  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ২১ জুলাই, ২০২০
  • ৯৫ বার

নির্মাণ কাজ শেষ না হলেও তড়িঘড়ি করে জামালপুর ডায়াবেটিস হাসপাতাল ভবন উদ্বোধন করা হয়েছে। এলজিইডি বলছে ভবন উদ্বোধনের আয়োজন করে ডায়াবেটিস সমিতি। আর ডায়াবেটিস সমিতি বলছে উদ্বোধনের আয়োজন শেষে তাদেরকে জানানো হয়েছে। ভবনের উদ্বোধনী নাম ফলকে সদরের এমপির নাম থাকলেও তিনি জানেন না এর কিছুই। কি রহস্য ছিল তড়িঘড়ি এই ভবন উদ্বোধনের, তাই এখন ঘোরপাক খাচ্ছে সচেতন মহলে।

জানা গেছে, জামালপুর ডায়াবেটিস হাসপাতাল নির্মাণের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ১৬ কোটি ১০ লাখ টাকা বরাদ্দ দেন। জামালপুর এলজিইডি এই ভবন নির্মাণ করতে দরপত্র আহবান করলে নির্মাণ কাজ পান ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান মেসার্স তমা কনস্ট্রাকশন। ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান নির্ধারিত সময়ে কাজ শেষ না করায় তাদেরকে আরো এক বছর সময় বাড়িয়ে দেয় এলজিইডি। এর পরেও শেষ হয়নি ভবনের নির্মাণ কাজ। কাজ শেষ না হলেও গত শনিবার তড়িঘড়ি উদ্বোধন করা হয় জামালপুর ডায়াবেটিস হাসপাতাল ভবন। উদ্বোধনী নাম ফলকে সদর আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ ইঞ্জিনিয়ার মোজাফ্ফর হোসেন উপস্থিত ছিলেন লেখা থাকলেও তিনি এ ব্যাপারে কিছুই জানেন না।

জামালপুর এলজিইডির নির্বাহী প্রকৌশলী মোখলেছুর রহমান সাংবাদিকদের জানান, ভবনটির নির্মাণ ব্যয় ১৬ কোটি ১০ লাখ টাকা। জামালপুর ডায়াবেটিস হাসপাতাল ভবন নির্মাণের সময় শেষ হলে পুনরায় সময় বাড়ানো হয়। আগামী ডিসেম্বর পর্যন্ত সময় আছে নির্মাণ কাজ শেষ করার। ইতোমধ্যে এর পূর্ত কাজ শেষ হয়েছে। বাকী আছে ভবনের লিফট, এসি লাগানোসহ অন্যান্য কাজ। ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান ইতোমধ্যে বিল উত্তোলন করেছে প্রায় ১৪ কোটি টাকা। তিনি জানান, এলজিইডি এই ভবন নির্মাণ কাজ বাস্তবায়ন করলেও উদ্বোধনের আয়োজন করে ডায়াবেটিস সমিতি। ডায়াবেটিস সমিতির নেতৃবৃন্দ বলছে সব আয়োজন করে আগের দিন সন্ধ্যায় তাদের জানানো হয়েছে। এমন প্রশ্নে নির্বাহী প্রকৌশলী জানান, বিষয়টি লোকাল। তার করার কিছুই নাই।

জামালপুর ডায়াবেটিস সমিতির সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ তরিকুল ইসলাম সাংবাদিকদের জানান, ভবন নির্মাণ করছে এলজিইডি। তারাই উদ্বোধনের আয়োজন করে আগের দিন তাদেরকে জানিয়েছে। উদ্বোধনের খবর পাবার পর তিনি ডায়াবেটিস সমিতির অন্যান্য কর্মকর্তা ও সদস্যদের এসএমএস দিয়ে জানিয়েছেন। এর বেশি তিনি কিছুই জানেন না। যা করা হয়েছে এর সবকিছু করেছে এলজিইডি ও ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান। তিনি জানান, ডায়াবেটিস সমিতি উদ্বোধনের আয়োজন করলে দাওয়াত কার্ড করে অনুষ্ঠান করতেন। সদরের সংসদ সদস্য, জেলা প্রশাসকসহ জেলার গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের আমন্ত্রন জানানো হত।

জামালপুর সদর আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ ইঞ্জিনিয়ার মোজাফ্ফর হোসেন জানান, ভবনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠান বিষয়ে তাকে এলজিইডি বা ডায়াবেটিস সমিতি জানাননি। অথচ উদ্বোধনী নাম ফলকে তার নাম লেখা হয়েছে তিনি উপস্থিত ছিলেন। তড়িঘড়ি কেনো উদ্বোধন জানতে চাইলে তিনি বলেন, বিষয়টি এলজিইডি ও ডায়াবেটিস সমিতিই ভাল বলতে পারবেন।

শহরের স্কাউট সড়কের পাশে ডায়াবেটিস হাসপাতালের অত্যাধুনিক ভবন নির্মাণের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ১৬ কোটি ১০ লাখ টাকা বরাদ্দ দেন।

অভিযোগ উঠেছে, জামালপুর এলজিইডির একজন সহকারী প্রকৌশলীর কাছে জিম্মি পুরো এলজিইডি। জেলার রাঘব বোয়ালদের সাথে তার উঠাবসা থাকায় তিনি কাউকে তোয়াক্কা করেন না। তার ইচ্ছায় চলে সবকিছু। ঠিকাদারী কাজ কে পাবেন, কে পাবেন না তাও নির্ভর করে ওই সহকারী প্রকৌশলীর মর্জির উপর। তার কথার হেরফের হলে রাঘব বোয়ালদের কাছে ধমক খেতে হয় অন্যদের।

সহকারী ওই প্রকৌশলী এতটাই প্রভাবশালী যে, তার কথার বাইরে যাবার সুযোগ নেই সংশ্লিষ্ট কারোরই। রাঘব বোয়ালদের আর্শিবাদে দীর্ঘদিন ধরে একই কর্মস্থলে আছেন তিনি। ওই সহকারী প্রকৌশলীর কারসাজিতেই করা হয়েছে জামালপুর ডায়াবেটিস হাসপাতাল ভবন তড়িঘড়ি উদ্বোধন।

এ জাতীয় আরো সংবাদ