1. successrony@gmail.com : Mehedi Hasan Rony :
  2. rj.nazmul2500@gmail.com : Nazmul Hossain : Nazmul Hossain
শনিবার, ৩১ অক্টোবর ২০২০, ০৩:২৪ অপরাহ্ন

খাশোগি হত্যা: সৌদি রায় নিয়ে ক্ষুব্ধ তুরস্ক

দিনলিপি নিউজ ডেস্ক
  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ২৪ ডিসেম্বর, ২০১৯
  • ১২৮ বার

সৌদি সাংবাদিক জামাল খাশোগি হত্যাকাণ্ডে সোমবার পাঁচজনকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছে সৌদি আরবের একটি আদালত। আরো তিনজনকে ২৪ বছরের কারাদণ্ড প্রদান করা হয়েছে। তবে অপরাধী কারা, তাদের নাম-পরিচয় কিছুই প্রকাশ্যে আনা হয়নি। তাই সৌদি আদালতের রায় নিয়ে ইতিমধ্যেই প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে। সৌদি আদালত আসলে‘দোষীদেরই’শাস্তি দিয়েছে তো? নাকি নিরাপরাধ কাউকে ফাঁসির মঞ্চে তুলে আসল অপরাধীদের আড়াল করার চেষ্টা করা হচ্ছে।

এই রায় নিয়ে সোমবারই অসন্তোষ প্রকাশ করেছে তুর্কি সরকার এবং আন্তর্জতিক মানবাধিকার সংস্থাগুলো।

তুরস্ক বলেছে, সৌদি ভিন্ন মতাবলম্বী সাংবাদিক জামাল খাশোগির হত্যাকারীদের বিরুদ্ধে আদালত সোমবার যে রায় দিয়েছে তাতে ন্যায়বিচার হয়নি। তুরস্কের মাটিতে সংঘটিত চাঞ্চল্যকর এ হত্যা মামলার স্বচ্ছ বিচার দাবি করেছে আঙ্কারা।

তুরস্কের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সোমবার এক বিবৃতিতে বলেছে, আন্তর্জাতিক সমাজ আশা করেছিল, আদালতের রায়ে খাশোগি হত্যাকাণ্ডের স্বরূপ উন্মোচিত হবে প্রকৃত ঘাতকদের বিচার হবে। কিন্তু বাস্তবে তা হয়নি।

ওই বিবৃতিতে আরো বলা হয়, খাশোগির লাশের ভাগ্যে কি ঘটেছে তা এখনো পরিষ্কার নয় এবং এ বিষয়টি প্রকাশ না করে সৌদি আদালত দায়িত্বহীনতার পরিচয় দিয়েছে।

রায় নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে আন্তর্জাতিক মানবাধিবার সংস্থা হিউমেন রাইটস ওয়াচ-ও। সোমবার সংস্থার মুখপাত্র আহমেদ বেনচেমসি সংবাদ মাধ্যম আল জাজিরাকে বলেন, ‘বিচার হয়েছে তবে তা সন্তোষজনক নয়।’

তিনি আরো বলেন,‘বিচার নিয়ে গোড়া থেকে গোপনীয়তার সূত্রপাত করা হয়েছিল এবং এখনও তাই চলছে। আমরা এখনও সেই মুখোশধারীদুর্বৃত্তদের পরিচয় জানি না। কার বিরুদ্ধে নির্দিষ্ট সুনির্দিষ্ট অভিযোগ, আমরা সেটাও জানি না।’

সোমবার সৌদি আরবের পাবলিক প্রসিকিউটর খাশোগি হত্যার রায় ঘোষণা করেন। এতে পাঁচজনকে মৃত্যুদণ্ড সাজা দেয়া হয়। প্রসিকিউটর জানান, খাশোগি হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে ওই পাঁচ ব্যক্তির সরাসরি সম্পৃক্ততা রয়েছে বলে তাদেরকে এই শস্তি দেয়া হয়েছে। মৃত্যুদণ্ড প্রাপ্তদের মধ্যে সৌদি রাজ পরিবারের একজন উচ্চ পদস্থ উপদেষ্টাও রয়েছেন। এই হত্যা মামলায় বাকি তিনজনকে ২৪ বছরের কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে। তবে ওই সাজাপ্রাপ্তদের নাম প্রকাশ করেননি প্রসিকিউটর।

গত বছরের ২ অক্টোবর তালাক সংক্রান্ত নথিপত্র সংগ্রহের জন্য ইস্তাম্বুলের সৌদি কনস্যুলেটে গিয়েছিলেন ৫৯ বছর বয়সী খাশোগি। এরপর আর তাকে দেখা যায়নি। পরে জানা যায়সৌদি কনস্যুলেটের অভ্যন্তরেই তাকে নিষ্ঠুরভাবে গলা কেটে হত্যা করেছিলো সৌদি ঘাতকেরা। তাকে হত্যার জন্য সৌদি আরব থেকে তুরস্কে ছুটে এসেছিলো একটি টিম।

এই হত্যাকাণ্ডের জন্য প্রথম থেকেই সৌদি আরবকে দুষছিলো তুরস্ক সরকার। কিন্তু প্রথম দিকে এ হত্যার দায় নিতে অস্বীকার করে রিয়াদ।

খাশোগি নিখোঁজ হওয়ার দুই সপ্তাহ পর তাকে হত্যার কথা আনুষ্ঠানিকভাবে স্বীকার করে সৌদি সরকার। এ হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত থাকার দায়ে দুই উচ্চপদস্থ কর্মকর্তাকে বরখাস্ত এবং আরো ১৮ সৌদি নাগরিককে আটক করেছিলো রিয়াদ। যদিও এ ঘটনায় আন্তর্জাতিক অঙ্গণে ব্যাপকভাবে সমালোচিত হয়েছিল সৌদি সরকার, বিশেষভাবে যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান।

সৌদি বাদশাহর কড়া সমালোচক ছিলেন নির্বাসনে থাকা ওয়াশিংটন পোস্টের ভার্জিনিয়া প্রতিনিধি সাংবাদিক খাশোগি। গত মার্চে আল জাজিরাকে দেয়া সাক্ষাৎকারে তিনি বলেছিলেন, সৌদিতে বহু বুদ্ধিজীবী ও সাংবাদিক কারাবন্দি আছেন। দেশটিতে এখন কেউ যুবরাজ ও তার তথাকথিত সংস্কারের বিরুদ্ধে কথা বলার সাহস পান না। কারণ এ নিয়ে যে উচ্চবাচ্য করবেন তিনি আর শ্বাস নেয়ার সুযোগ পাবেন না।’

ওয়াশিংটন পোস্টের দাবি, এর আগেও সৌদি কর্মকর্তারা তাকে অপহরণ করার পরিকল্পনা করেছিল।

সূত্র: আল জাজিরা

 

এ জাতীয় আরো সংবাদ