1. successrony@gmail.com : Mehedi Hasan Rony :
  2. arif_rashid@live.com : Arif Rashid : Arif Rashid
  3. meherunnesa3285@gmail.com : Meherun Nesa : Meherun Nesa
সোমবার, ২১ নভেম্বর ২০২২, ০৯:৩১ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
সিরাজদিখানে গভীর রাতে গৃহবধূ প্রেমিকার ঘরে পরকীয়া প্রেমিক পাকরাও, থানায় হস্তান্তর! সিরাজদিখানে বঙ্গবন্ধু ফুটবল টুর্নামেন্টের ২য় সেমিফাইনাল অনুষ্ঠিত অতিরিক্ত টাকা না দিলে ফাইল ছুড়ে ফেলে দেন ভূমি সহকারী কর্মকর্তা আব্দুস সামাদ! যুবলীগের কেন্দ্রীয় যুব-সমাবেশে সিরাজদিখানের দুই হাজার যুবলীগ নেতাকর্মীর যোগদান সিরাজদিখানে মজুদ কৃত আলু নিয়ে বিপাকে কৃষক! সিরাজদিখান সাব রেজিষ্ট্রি অফিসে সক্রিয় প্রভাবশালী জালিয়াতি চক্রের দৌরাত্ম! সিরাজদিখানে গ্রীল কেটে স্বর্ণালংকার ও নগদ টাকাসহ ১০ লাখ টাকার মালামাল চুরি! বিড়াল হত্যার বিচার চেয়ে তরুণী থানায়। অভিযোগ শুনে পুলিশের হাসিঠাট্টা মহাসংকটের শঙ্কা, খাদ্য নিরাপত্তায় জোর প্রধানমন্ত্রীর ফোন নম্বর ছাড়াই যেভাবে ব্যবহার করবেন হোয়াটসঅ্যাপ

ফটোগ্রাফার আনেননি বর, বিয়ে ভাঙলেন কনে

দিনলিপি নিউজ ডেস্ক
  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ৩১ মে, ২০২২
  • ৪৮ বার

বিয়ে মানে শুধু বর-কনেই নয়, দু’টি পরিবারের মধ্যে সম্পর্ক স্থাপন। কিন্তু আজকাল অনেকের কাছে এসবের যেন কোন দামই নেই। বরং মেক-আপ, সাজ, ছবি তোলার গুরুত্বই বেশি। সাম্প্রতিক এক ঘটনায় বিষয়টি আবারও স্পষ্ট হলো। বর ফটোগ্রাফার জোগাড় করতে না পারায় বিয়ে বাতিল করেছেন এক কনে।

বিচিত্র এই ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের উত্তরপ্রদেশের কানপুরের দেহাটের মঙ্গলপুরের একটি গ্রামে।

ভারতীয় হিন্দুস্তান টাইমসের খবর অনুযায়ী, মঙ্গলপুরের ওই গ্রামের এক কৃষকের মেয়ের সঙ্গে বিয়ে ঠিক হয়েছিল ভোগনিপুরের এক পাত্রের। বিয়ের সব আয়োজনও হয়ে গিয়েছিল। কনের বাবা বিয়ে উপলক্ষে অনেক খরচ করে সব আয়োজন করেন। বিয়ের দিন সময় মতো বরপক্ষ এসে হাজির হয়। কনের পরিবার তাদের স্বাগত জানায়। মালাবদলের জন্য কনে এবং বর মঞ্চে ওঠেন। এরপর কনে স্টেজের চারিদিকে তাকাতে থাকেন। কিন্তু কোনো ফটোগ্রাফার বা ভিডিওগ্রাফার দেখতে না পেয়ে কনে বুঝতে পারেন, তার স্মরণীয় মুহূর্ত ধরে রাখার জন্য কোনো ফটোগ্রাফার বা ভিডিওগ্রাফারের ব্যবস্থা করা হয়নি। সঙ্গে সঙ্গেই বিয়ে করতে অস্বীকৃতি জানান তিনি। শুধু তাই নয়, বিয়ের মঞ্চ থেকে নেমে চলে যান এক প্রতিবেশির বাড়িতে।

এরপর সবাই মিলে কনেকে বোঝানোর অনেক চেষ্টা করেন। কিন্তু কনের সাফ কথা, ‘যে মানুষটা আজ আমাদের বিয়ের বিষয়েই যত্ন নেয়নি, সে ভবিষ্যতে কীভাবে আমার দেখভাল করবে?’

পরিবারের বড়রাও তাকে বোঝানোর চেষ্টা করেন। তবে কোনও কথাই শুনতে রাজী হননি কনে।

পরবর্তীতে এই ঘটনা থানা পর্যন্ত গড়ায়। তবে দুই পক্ষ সমঝোতা করে ব্যাপারটা মিটিয়ে নেয়। ঠিক হয়, বরপক্ষকে খরচের ক্ষতিপূরণ দিয়ে দেওয়া হবে। বরপক্ষও মিটিয়ে দেবে পাওনা। তবে একটি ফটোগ্রাফারের জন্য যে বিয়ে ভাঙতে পারে, তা এখনও বিশ্বাসই করতে পারছেন না অনেকে।

এ জাতীয় আরো সংবাদ