1. successrony@gmail.com : Mehedi Hasan Rony :
  2. arif_rashid@live.com : Arif Rashid : Arif Rashid
  3. meherunnesa3285@gmail.com : Meherun Nesa : Meherun Nesa
বুধবার, ১৮ মে ২০২২, ০২:০১ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
সিরাজদিখানে দোকান বাকী না দেওয়ায় শারীরিক প্রতিবন্ধিকে মারধর ।। সংবাদ সংগ্রহ করায় সাংবাদিকের উপর চড়াও! শাহজাদপুরে চিরদিনের জন্য রেখে এলাম আমাদের কলিজার টুকরা ফাহাদ আব্বুকে ‘পুতিন কবে আমাদের রেলভ্রমণ করে গেলেন কেউ জানলাম না’ ভূট্টা চাষে আগ্রহ বেড়েছে কৃষকদের!  কচুর লতি বিক্রি করতে বাজারে বিশ্ববিদ্যালয় অধ্যাপক! পি কে হালদারকে বাংলাদেশের কাছে হস্তান্তর করবে ভারত এবার আসছে পানযোগ্য স্যানিটাইজার বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে কটূক্তি: নুরের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে অভিযোগ নুসরাতের রইল না কেউ, সকালে মারা গেলেন মা-বোন বিকেলে বাবা ঘর উপহার পেয়ে আনন্দের বন্যা ভূমি ও গৃহহীন পরিবারের সদস্যদের

ভয়াবহ যত ট্রেন দুর্ঘটনা

দিনলিপি নিউজ ডেস্ক
  • আপডেট টাইম : শনিবার, ১৬ নভেম্বর, ২০১৯
  • ৩৬১ বার

বাংলাদেশে সবচেয়ে ভয়াবহ ট্রেন দুর্ঘটনা ঘটে ১৯৮৯ সালে টঙ্গীতে। ওই ঘটনায় প্রাণ হারান ১৭০ জন। ৩০ বছর আগে সেই দুর্ঘটনাও ছিল দুটি ট্রেনের মুখোমুখি সংঘর্ষের কারণে। এরপর চট্টগ্রাম লাইনে বেশ কয়েকটি মুখোমুখি সংঘর্ষের ঘটনায় প্রাণ গেছে শতাধিক যাত্রীর। যাত্রীকল্যাণ সমিতি ও রেল নিয়ে যারা গবেষণা করেন তারা বলছেন, সিগন্যালের দুর্বলতায় মুখোমুখি সংঘর্ষে ও লাইনচ্যুতির কারণে প্রাণ গেছে যে সহস্রাধিক মানুষের— চাইলেই তা এড়ানো সম্ভব ছিল।

এখন পর্যন্ত সবচেয়ে বড় দুর্ঘটনাটি ১৯৮৯ সালের। ওই বছরের ১৫ জানুয়ারি টঙ্গীর কাছে মাজুখানে দুটি ট্রেনের মুখোমুখি সংঘর্ষ ঘটে। এতে ১৭০ জন যাত্রী নিহত  এবং ৪০০ জন আহত হন। আর স্প্যান ভেঙে পড়ে সবচেয়ে বড় দুর্ঘটনাটি ঘটে ১৯৮৩ সালের ২২ মার্চ ঈশ্বরদীতে। সেতুর স্প্যান ভেঙে কয়েকটি বগি নিচে শুকনা জায়গায় পড়ে যায়। এ দুর্ঘটনায় ৬০ জন যাত্রী নিহত হন।

সোমবার (১১ নভেম্বর) দিবাগত রাত তিনটার দিকে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা উপজেলার মন্দবাগ রেল স্টেশনে তূর্ণা নিশীথা ও উদয়ন এক্সপ্রেস ট্রেনের মধ্যে ঘটা মুখোমুখি সংঘর্ষটি আরও একটি ভয়াবহ দুর্ঘটনার তালিকাভুক্ত হলো। এ দুর্ঘটনায় এপর্যন্ত ১৬ জন নিহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। আহতের সংখ্যা অন্তত ১০০ জন। নিশীথা চট্টগ্রাম থেকে ঢাকার দিকে আর উদয়ন এক্সপ্রেস সিলেট থেকে চট্টগ্রাম যাচ্ছিল।

হিসাব বলছে, চট্টগ্রাম রেল লাইনে গত ৩০ বছরে বেশ কয়েকটি ট্রেন দুর্ঘটনা ঘটেছে। ১৯৮৯ সালে ২ ফেব্রুয়ারি চট্টগ্রামের কাছাকাছি ট্রেন লাইনচ্যুত হয়ে ১৩ জন নিহত ও ২০০ জন আহত হন। এই একই লাইনে ২০১০ সালে চট্টগ্রামগামী আন্তঃনগর ট্রেন ‘মহানগর গোধূলি’ ও ঢাকাগামী মেইল ‘চট্টলা’র মুখোমুখি সংঘর্ষ ঘটে। এ ঘটনায় চট্টলা ট্রেনের একটি বগি মহানগর ট্রেনের ইঞ্জিনের ওপরে উঠে যায়। সেই দুর্ঘটনায় চালকসহ মোট ১২ জন নিহত হন।

এছাড়া, উত্তরবঙ্গেও বেশকিছু ট্রেন দুর্ঘটনা ঘটেছে। এরমধ্যে ‘হিলি ট্র্যাজেডি’ নামে পরিচিত ১৯৯৫ সালের ১৩ জানুয়ারি গোয়ালন্দ থেকে পার্বতীপুরগামী ৫১১ নম্বর লোকাল ট্রেনটির দুর্ঘটনা। এ ঘটনায় পার্বতীগামী ট্রেনটি হিলি রেলস্টেশনের এক  নম্বর লাইনে এসে দাঁড়ায়। এর কিছুক্ষণ পর সৈয়দপুর থেকে খুলনাগামী আরেকটি আন্তঃনগর সীমান্ত এক্সপ্রেস একই লাইনে ঢুকে পড়ে। এসময় মুখোমুখি সংঘর্ষ ঘটলে  অর্ধশতাধিক যাত্রী নিহত হন।

যাত্রী কল্যাণ সমিতির মহাসচিব মো. মোজাম্মেল হক চৌধুরী ট্রেন দুর্ঘটনার বিষয়ে বলেন, ‘সবচেয়ে নিরাপদ মনে করা হয় ট্রেনকে। তবে সামান্য প্রাণ যায় মানুষের। আর যারা আহত হন তারা আরও  দুর্বিসহ জীবন যাপন করেন।  তাদের খোঁজও আমরা রাখি না।’ ১১ নভেম্বরের দুর্ঘটনাকে ভয়াবহতার দিক থেকে দ্বিতীয় বৃহত্তর উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘এরচেয়ে প্রাণের ক্ষতি অন্য দুর্ঘটনায় বেশি ঘটলেও ভয়াবহতার দিক দিয়ে এটি অনেক এগিয়ে।’

মোজাম্মেল হক বলেন, ‘ট্রেন দুর্ঘটনা বেশিরভাগই হয় লাইনচ্যুত হয়ে বা মুখোমুখি সংঘর্ষে। রেলের গাফিলতি নিয়ে আমরা প্রতিনিয়ত কথা বললেও খুব বেশি লাভ হচ্ছে না। রেলে অনেক বড় প্রকল্প নেওয়া হচ্ছে। কিন্তু কোনটা  অগ্রাধিকার পাওয়া উচিত সেটায় মনোযোগ তাদের নেই।’

রেলগবেষক ও ওয়ার্ক ফর এ বেটার বাংলাদেশ (ডব্লিউবিবি) ট্রাস্টের প্রকল্প কর্মকর্তা মো. আতিকুর রহমান তার অভিজ্ঞতা থেকে মনে করেন, ট্রেন চালকদের চুক্তিভিত্তিক নিয়োগ ও তারা বয়স্ক হওয়ায় এধরনের দুর্ঘটনাগুলো ঘটে। লোকবল সংকটের কারণে এদেরকে গ্রেড দিয়ে উন্নীত করার মতো বিষয়গুলো এ জন্য দায়ী। সিগন্যাল ব্যবস্থার সমালোচনা করে তিনি বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘সিগন্যালিং ব্যবস্থায় সমস্যা রয়ে গেছে। এধরনের দুর্ঘটনা ঘটলে অধিকাংশ ক্ষেত্রে আসল কারণ আড়ালে চলে যায়। ট্রাফিকিং বিভাগ, মেকানিক্যাল, সিগন্যালিং ও মেইনটেনেন্স বিভাগ একে অপরকে দোষ দিতে থাকে।’

তিনি আরও  বলেন, ‘দুর্ঘটনা ঘটার পরের যে প্রস্তুতি সেটি আমাদের একেবারেই নেই। দুর্ঘটনায় যদি আগুন ধরার মতো ঘটনা ঘটতো, সেক্ষেত্রে ট্রেনের মধ্যে আগুন নির্বাপণের  সক্ষমতা কি আমরা রাখি? দুর্ঘটনার পর ট্রেনটিকে সরিয়ে নেওয়াটাই একমাত্র পরিত্রাণ হয়ে দাঁড়ায়। সার্বিকভাবে আমরা রেল বিভাগের গাফিলতি দেখতে পাই।’

এ জাতীয় আরো সংবাদ