1. successrony@gmail.com : Mehedi Hasan Rony :
  2. arif_rashid@live.com : Arif Rashid : Arif Rashid
  3. meherunnesa3285@gmail.com : Meherun Nesa : Meherun Nesa
  4. rj.nazmul2500@gmail.com : Meherun Nesa : Meherun Nesa
মঙ্গলবার, ২৬ অক্টোবর ২০২১, ০৯:১৬ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
প্রাচ্য-পাশ্চাত্যে ব্যবসায়িক সেতুবন্ধন গড়ে তুলবে বাংলাদেশ : প্রধানমন্ত্রী সিরাজদিখানে পেরিলা প্রদর্শনীর মাঠ দিবস অনুষ্ঠিত ইউপি নির্বাচনে বিকল্পধারা হতে কোন প্রার্থী দিব না: সাংসদ মাহি বি চৌধুরী সিরাজদিখানে ১০ লাখ টাকা ধার দিয়ে বেকায়দায় একটি পরিবার! সিরাজদিখানে জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবস পালিত ইউপি নির্বাচনে কেয়াইন ২নং ওয়ার্ড ইউপি সদস্য হতে চান রুবেল ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে বালুচর ১নং ওয়ার্ড সদস্য হতে চান ওয়াসিম আহমেদ ওমানকে হারিয়ে বিশ্বকাপে টিকে রইলো বাংলাদেশ সিরাজদিখানে ঈদ-এ মিলাদুন্নবী উপলক্ষে ছাত্র-ছাত্রীদের মাঝে শিক্ষা সামগ্রী বিতরণ মালখানগরে নৌকার মাঝি হওয়ার লক্ষে মাঠে রয়েছেন দুইজন!

চিকিৎসার জন্য বিদেশ যেতে চান খালেদা

দিনলিপি নিউজ ডেস্ক
  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ১১ আগস্ট, ২০২০
  • ৩৪২ বার

বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া প্রয়োজন হলে হাঁটুর চিকিৎসার জন্য দেশের বাইরে যেতে চান৷ কারণ এই করোনায় তার কোনো ‘অ্যাডভান্স’ চিকিৎসা হয়নি বলে তার চিকিৎসক, আইনজীবী এবং দলীয় নেতারা জানিয়েছেন৷ এজন্য তার মুক্তির মেয়াদ বাড়ানোর আবেদন করা হবে৷

খালেদা জিয়ার সাজা স্থগিত করে গত ২৫ মার্চ সরকার তাকে নির্বাহী আদেশে ছয় মাসের জন্য মুক্তি দেয়৷ তার এই মুক্তির মেয়াদ শেষ হবে ২৪ সেপ্টেম্বর৷

কিন্তু খালেদা জিয়ার ব্যক্তিগত চিকিৎসক দলের সদস্য ডা. এ জেড এম জাহিদ হোসেন জানান, মুক্তির সময় খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা যেমন ছিল তেমনই আছে৷ কোনো উন্নতি হয়নি৷ করোনার কারণে তিনি মুক্তির পর শুরুতে আইসোলেশনে ছিলেন৷ এখন তার চিকিৎসকেরা মাঝে মধ্যে বাসায় গিয়ে তাকে দেখছেন৷ কিন্তু তাকে বিএসএমইউর চিকিৎসকেরা যে পরামর্শ দিয়েছেন তা শুরু সম্ভব হয়নি করোনার কারণে৷

করোনা এখনো চলমান৷ কবে শেষ হবে ঠিক নেই৷ আর এই পরিস্থিতিতে তার পুরো চিকিৎসা শুরুও সম্ভব নয় বলে মনে করেন তিনি৷ তার মতে অ্যাডভান্স চিকিৎসার জন্য অ্যাডভান্স সেন্টার দরকার৷ সেটা দেশে ও হতে পারে, বিদেশেও হতে পারে৷

বিএনপিসহ রাজনৈতিক মহলে আলোচনা চলছে খালেদা জিয়ার মুক্তির মেয়াদ বাড়ানোর আবেদন করা হবে কি না৷ খালেদা জিয়া দুটি শর্তে মার্চে মুক্তি পেয়েছেন৷ এক. বাসায় থেকে দেশেই চিকিৎসা করাবেন৷ দুই. দেশের বাইরে যেতে পারবেন না৷

দুই সপ্তাহ আগে খালেদা জিয়ার সাথে দেখা করেছেন, বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন৷ তিনি বলেন, ‘খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা ভালো নয়৷ আর তার হাঁটুর চিকিৎসাটাই এখন গুরুত্বপূর্ণ৷ সেই চিকিৎসা দেশে সম্ভব না হলে তিনি দেশের বাইরে যেতে চান৷ তিনি দেশেই চিকিৎসা করাতে চান৷ কিন্তু যেহেতু তার হাঁটুর চিকিৎসা আগে দেশের বাইরে হয়েছে তাই এক সপ্তাহের জন্য দেশের বাইরে যেতে পারেন৷’

আর এখন যেহেতু করোনার কারণে তার চিকিৎসা শুরু সম্ভব হচ্ছে না তাই মুক্তির মেয়াদ শেষ হওয়ার আগেই সরকারের কাছে মেয়াদ বাড়ানোর আবেদন করা হবে বলে জানান মাহবুব উদ্দিন খোকন৷

একই কথা বলেন তার আইনজীবী ব্যারিস্টার কায়সার কামাল৷ তিনি জানান, সময় মতো আবেদন করা হবে৷ আর তার চিকিৎসার জন্যই মুক্তির মেয়াদ বাড়ানো প্রয়োজন৷

কিন্তু দুদকের আইনজীবী খুরশিদ আলম মনে করেন, ‘সরকার বিষয়টি আদালতকে জানালে ভালো হতো৷ সরকার নির্বাহী সিদ্ধান্তে খালেদা জিয়াকে মুক্তি দিয়েছে৷ কিন্তু তিনি দুদকের মামলায় দণ্ডপ্রাপ্ত৷ সরকার তাকে মুক্তি দেয়ায় আইনের কোনো ব্যত্যয় ঘটেছে৷ আইনে আদালতকে অবহিত করার একটি বিধান আছে৷ তার যদি মুক্তির মেয়াদ সরকার আবার বাড়ায় তাতে আমাদের আপত্তি নেই, খালেদা জিয়ার প্রতি আমাদের কোনো বিরাগ নাই৷’ তবে সেটা আদালতকে জানিয়ে করলে ভালো হয় বলে মনে করেন তিনি৷

আর আইনমন্ত্রী অ্যাডভোকেট আনিসুল হক বলেন, ‘খালেদা জিয়ার মুক্তির মেয়াদ এখনো শেষ হয়নি৷ তার মুক্তির মেয়াদ বাড়ানের জন্য কোনো আবেদনও করা হয়নি৷ যখন আবেদন করা হবে তখন আমরা দেখব৷’

চিকিৎসকেরা জানান খালেদা জিয়ার হাত ও পায়ের সমস্যা আগের মতোই আছে৷ ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে রাখা কঠিন হয়ে পড়ছে৷ বিএসএমএমইউর প্রতিবেদনেও তার একই সমস্যার কথা বলা হয়েছে৷ তিনি নিজে থেকে চলাফেরা করতে পারেন না৷ এমনকি পানিও নিজে উঠে খেতে পারেন না বলে চিকিৎসকরা জানান৷ খালেদা জিয়ার পরিবারে সদস্যরা তাই এখন দেশের বাইরেই তার চিকিৎসা চান৷ সূত্র: ডয়চে ভেলে

এ জাতীয় আরো সংবাদ