1. successrony@gmail.com : Mehedi Hasan Rony :
  2. arif_rashid@live.com : Arif Rashid : Arif Rashid
  3. meherunnesa3285@gmail.com : Meherun Nesa : Meherun Nesa
বুধবার, ১৮ মে ২০২২, ০৩:১৮ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
সিরাজদিখানে দোকান বাকী না দেওয়ায় শারীরিক প্রতিবন্ধিকে মারধর ।। সংবাদ সংগ্রহ করায় সাংবাদিকের উপর চড়াও! শাহজাদপুরে চিরদিনের জন্য রেখে এলাম আমাদের কলিজার টুকরা ফাহাদ আব্বুকে ‘পুতিন কবে আমাদের রেলভ্রমণ করে গেলেন কেউ জানলাম না’ ভূট্টা চাষে আগ্রহ বেড়েছে কৃষকদের!  কচুর লতি বিক্রি করতে বাজারে বিশ্ববিদ্যালয় অধ্যাপক! পি কে হালদারকে বাংলাদেশের কাছে হস্তান্তর করবে ভারত এবার আসছে পানযোগ্য স্যানিটাইজার বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে কটূক্তি: নুরের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে অভিযোগ নুসরাতের রইল না কেউ, সকালে মারা গেলেন মা-বোন বিকেলে বাবা ঘর উপহার পেয়ে আনন্দের বন্যা ভূমি ও গৃহহীন পরিবারের সদস্যদের

সিরাজদিখান থানা আঙিনায় দুই পক্ষের সংঘর্ষে আহত-৪

মোহাম্মদ রোমান হাওলাদার
  • আপডেট টাইম : বুধবার, ৩ নভেম্বর, ২০২১
  • ২১১ বার

মুন্সিগঞ্জের সিরাজদিখানে পুর্ব শত্রুতার জেরে দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ হয়েছে। গতকাল বুধবার ৩ নভেম্বর দুপুর অনুমান ১টার দিকে সিরাজদিখান থানা আঙিনায় এঘটনা ঘটে। সংঘর্ষ চলাকালীন থানা পুলিশ লাঠিচার্জ করে উভয় পক্ষকে ছত্রভঙ্গ করে দিয়ে থানার প্রধান গেট বন্ধ করে দিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এ ঘটনায় উভয় পক্ষের গুরুতর আহতসহ ৪ জন আহত হয়েছে৷ আহতদের বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য পাঠানো হয়েছে।

জানা যায়, দীর্ঘদিন যাবত উপজেলার লতব্দী ইউনিয়নের রামকৃষ্ণদী গ্রামের জহির ও বালুচর ইউনিয়নের কয়রাখোলা গ্রামের বরকত পক্ষের মধ্যে জমিজমা সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে উত্তেজনা বিরাজসহ নিরব শত্রুতা চলে আসছিলো। বিষয়টি টের পেয়ে থানার ওসির বোরহান উদ্দিন মিমাংসার জন্য দুই পক্ষকে থানায় ডেকে আনে। পরে দুই পক্ষের লোকজন থানার মোড়সহ ও থানা আঙিনায় জড়ো হলে তাদের মধ্যে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে সংঘর্ষ বেধে যায়। এতে জহির নামে একজন গুরুতর আহতসহ চার জন আহত হয়। সংঘর্ষ চলাকালীন সময় থানা পুলিশ লাঠিচার্জ করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এসময় থানার এক কনস্টেবল স্থানীয় এক সাংবাদিকের মোবাইল ফোন ছিনিয়ে নিয়ে ধারণকৃত সংঘর্ষের ভিডিও ফুটেজ ও স্থির চিত্র ডিলিট করে দেয়৷ গুরুতর আহত জহিরকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হলে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে ঢাকায় রেফার্ড করা হয়েছে।

আহত জহিরের বড় ভাই ইকবাল জানান, থানায় মীমাংসা করে দিবে বলে চার-পাঁচবার বসা হয়েছে। কিন্তু মীমাংসা হয়নি। আজকেও আবার থানায় গেয়েছিল। কিন্তু থানায় যাওয়ার পর বরকতের লোকজন আমার ভাইয়ের উপর অতর্কিত হামলা করে। আমার ভাইয়ের এখনো জ্ঞান ফেরেনি। আমার ভাই খুব গুরুতর অবস্থায় আছে। সিরাজদিখান থানার ওসি মোহাম্মদ বোরহান উদ্দিন জানান, মারামারির ঘটনা ঘটেছে থানার পাশে সমবায় মার্কেটে। এ সময় দৌড়ে এসে আহত একজন থানায় আশ্রয় নিয়েছে। আমরা আহত দু‘জনকে চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে পাঠিয়েছি এবং দু‘জনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করেছি । এখনো কোন মামলা হয়নি ।

এ জাতীয় আরো সংবাদ