1. successrony@gmail.com : Mehedi Hasan Rony :
  2. arif_rashid@live.com : Arif Rashid : Arif Rashid
  3. meherunnesa3285@gmail.com : Meherun Nesa : Meherun Nesa
সোমবার, ২১ নভেম্বর ২০২২, ০৩:৪২ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
সিরাজদিখানে গভীর রাতে গৃহবধূ প্রেমিকার ঘরে পরকীয়া প্রেমিক পাকরাও, থানায় হস্তান্তর! সিরাজদিখানে বঙ্গবন্ধু ফুটবল টুর্নামেন্টের ২য় সেমিফাইনাল অনুষ্ঠিত অতিরিক্ত টাকা না দিলে ফাইল ছুড়ে ফেলে দেন ভূমি সহকারী কর্মকর্তা আব্দুস সামাদ! যুবলীগের কেন্দ্রীয় যুব-সমাবেশে সিরাজদিখানের দুই হাজার যুবলীগ নেতাকর্মীর যোগদান সিরাজদিখানে মজুদ কৃত আলু নিয়ে বিপাকে কৃষক! সিরাজদিখান সাব রেজিষ্ট্রি অফিসে সক্রিয় প্রভাবশালী জালিয়াতি চক্রের দৌরাত্ম! সিরাজদিখানে গ্রীল কেটে স্বর্ণালংকার ও নগদ টাকাসহ ১০ লাখ টাকার মালামাল চুরি! বিড়াল হত্যার বিচার চেয়ে তরুণী থানায়। অভিযোগ শুনে পুলিশের হাসিঠাট্টা মহাসংকটের শঙ্কা, খাদ্য নিরাপত্তায় জোর প্রধানমন্ত্রীর ফোন নম্বর ছাড়াই যেভাবে ব্যবহার করবেন হোয়াটসঅ্যাপ

নির্বাচন কমিশনার হতে চান স্বাস্থ্যের সেই সিরাজুল হক খান

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • আপডেট টাইম : বুধবার, ২৩ ফেব্রুয়ারী, ২০২২
  • ১১৬ বার

সেবা গ্রিন লাইন ও মাসুদ স্টিল ডিজাইন বিডি লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক কে এম মাসুদুর রহমান মাসুদ রাতারাতি হাজার কোটি টাকার মালিক হওয়ার পেছনে রয়েছেন একজন সাবেক সচিব। যিনি মাসুদকে ব্যাপক সহায়তা করেছেন এবং এক পর্যায়ে উক্ত সচিব মাসুদের ব্যবসায়ীক পার্টনার হয়েছেন। এই ব্যক্তি হলেন সাবেক স্বাস্থ্য ও বিজ্ঞান প্রযুক্তি সচিব সিরাজুল হক খান।

এই সাবেক সচিব বর্তমানে মাসুদের সেবা ফিলিং স্টেশন উত্তরা আশুলিয়া বেড়ীবাধ সংলগ্ন সরকারি জমি দখল করে নির্মিত সেবা ফিলিং ও সিএনজি স্টেশনের পার্টনার। সেই সঙ্গে গাজীপুরের হোতাপাড়া বাস স্ট্যান্ড’র পশ্চিমে ফিরোজ আলী নামক স্থানে ৩০০ একর জমি নিয়ে গড়ে উঠেছে ‘মাসুদ স্টিল ডিজাইন বিডি লি.’ এবং উত্তরার বিভিন্ন সেক্টরে ৭-৮টি আট তলা নান্দনিক বাড়ি মাসুদ ও তার পার্টনার সিরাজুল হক খানের রয়েছে।

এছাড়া গাজীপুর, আশুলিয়া ফরিদপুর, গোপালগঞ্জ ও কক্সবাজার-চট্টগ্রামসহ দেশের উত্তর ও দক্ষিণ অঞ্চলে শত শত বিঘা জায়গা-জমি ক্রয় করেছে।

মাসুদ ও তার আত্মীয়স্বজন পরিবার-পরিজন এবং পার্টনারদের নামে বেনামে সম্পদের পাহাড় গড়েছেন। তাছাড়া বিদেশে ও তাদের একাধিক বাড়ি ও সম্পদ রয়েছে যা তদন্তে আরো অনেক অজানা তথ্য বেরিয়ে আসবে।

সিরাজুল হক খান সাবেক সচিব হওয়ায় বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে মাসুদ স্টিল মিলের রড প্রেসার খাটিয়ে বিক্রি করেন। বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে কাজ পাইয়ে দেওয়ার কথা বলে মানুষের কাছ টাকা হাতিয়ে নেন বলে তার বিরুদ্ধে অভিযোগ রয়েছে।

এখানে উল্লেখ করা প্রয়োজন যে, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দুর্নীতি ও দুর্নীতিবাজদের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি অবলম্বনের পরেও মাসুদ ও তার সঙ্গীরা বার বার মিডিয়া এবং আলোচনায় আসার পরেও রহস্যজনকভাবে তাদের বিরুদ্ধে কোনো আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে না।

দুদকে একাধিক অভিযোগ রয়েছে সিরাজ ও মাসুদের বিরুদ্ধে। ক্যাসিনো কেলেঙ্কারির সাথে জড়িত ছিলেন সিরাজুল হক খানের ব্যবসায়ীক পার্টনার কে এম মাসুদুর রহমান মাসুদ।

উল্লেখ্য, সাবেক সচিব সিরাজুল হক খান স্বাস্থ‌্য মন্ত্রণালয়ে থাকা অবস্থায় ব্যাপক অনিয়ম ও দুর্নীতির সঙ্গে জড়িয়ে পড়েন। দুর্নীতির সঙ্গে জড়িত থাকায় চাকরির শেষ সময়ে তাকে ওএসডি করা হয়। সেই বিতর্কিত সিরাজুল হক খান বর্তমানে নির্বাচন কমিশনার হওয়ার জন্য টাকার বস্তা নিয়ে মাঠে নেমেছেন বলে গুঞ্জন উঠেছে।

এ জাতীয় আরো সংবাদ