1. successrony@gmail.com : Mehedi Hasan Rony :
  2. arif_rashid@live.com : Arif Rashid : Arif Rashid
  3. meherunnesa3285@gmail.com : Meherun Nesa : Meherun Nesa
রবিবার, ০৭ অগাস্ট ২০২২, ০৩:৪১ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
বঙ্গবন্ধুর মাজার জিয়ারতে সাবেক ছাত্রলীগ ফোরাম! সিরাজদিখানে হামলার ঘটনায় মামলা, সংবাদ প্রকাশ করায় সাংবাদিককে প্রান নাশের হুমকি! মুন্সীগঞ্জ জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের কমিটি বহাল সিরাজদিখানে খালেদা জিয়া ও আব্দুল হাইয়ের রোগমুক্তি কামনায় দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত সিরাজদিখানে জুয়া খেলতে বাঁধা দেয়ায় বৃদ্ধের মাথায় কোপ ও মারধর! উন্নত চিকিৎসায় ঢাকায় প্রেরণ। ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতির প্রথম মৃত্যু বার্ষিকীর স্মরণসভায় উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ সিরাজদিখানে আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের ২৮ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী ও সজিব ওয়াজিদ জয়ের জন্মদিন পালন সিরাজদিখানে স্বর্ণের দোকানে চুরির অভিযোগ! সাশ্রয়ী হওয়ার পাশাপাশি খাদ্য উৎপাদনে জোর প্রধানমন্ত্রীর সিরাজদিখানে জাল দলিল করে ভাইয়ের সম্পত্তি বোনের বিক্রি, ফেরৎ চাওয়ায় মারধর!

বাদ জোহর রফিকুল-উল হকের জানাজা, বিকালে দাফন

দিনলিপি নিউজ ডেস্ক
  • আপডেট টাইম : শনিবার, ২৪ অক্টোবর, ২০২০
  • ২৫৫ বার

সাবেক অ্যাটর্নি জেনারেল রফিক-উল হকের জানাজা বাদ জোহর জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমে অনুষ্ঠিত হবে। বিকালে বনানী কবরস্থানে তাকে দাফন করা হবে।

আদ-দ্বীন হাসপাতালের জনসংযোগ কর্মকর্তা তবিবুর রহমান আকাশ বলেন, সকাল সাড়ে ১০টায় হাসপাতাল সংলগ্ন মসজিদে ব্যারিস্টার রফিকের জানাজার পর মরদেহ পল্টনের বাড়িতে নেয়া হবে।

সেখান থেকে মরদেহে নেয়া হবে বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদে। বাদ জোহর সেখানে জানাজার পর মরদেহ নেয়া হবে সুপ্রিমকোর্ট প্রাঙ্গণে। সুপ্রিমকোর্ট প্রাঙ্গণে জানাজার পর বিকালে ব্যারিস্টার রফিককে বনানী কবরস্থানে দাফন করা হবে বলে আকাশ জানান।

আজ শনিবার (২৪ অক্টোবর) সকাল সাড়ে ৮টার দিকে রাজধানীর আদ-দ্বীন হাসপাতালে মারা যান প্রবীণ এই আইনজীবী। তার বয়স হয়েছিল ৮৫ বছর। বার্ধক্যজনিত নানা সমস্যায় আক্রান্ত হয়ে আদ-দ্বীন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন রফিক-উল হক। রফিক-উল হকের স্ত্রী ফরিদা হক বেশ কয়েক বছর আগে মারা যান। তার ছেলে ফাহিম-উল হকও আইনজীবী।

জানা গেছে, রক্তশূন্যতা, ইউরিন সমস্যাসহ বার্ধক্যজনিত জটিলতায় ভুগছিলেন প্রবীণ এই আইনজীবী। তিনি ডা. রিচমন্ড রোল্যান্ড গোমেজের তত্ত্বাবধানে চিকিৎসাধীন ছিলেন। এর আগে গত জুনে ডায়াবেটিকের পরিমাণ কমে যাওয়ায় শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে তখনও আদ-দ্বীন হাসপাতালের নিবিড় পর্যবেক্ষণে ছিলেন ব্যারিস্টার রফিক-উল হক। তখন তিনি পল্টনের বাসায় অবস্থান করেই চিকিৎসা নিয়ে সুস্থ হয়ে ওঠেন।

২০১৭ সালে বাম পায়ের হাঁটুতে অস্ত্রোপচারের পর থেকে তার চলাফেরা সীমিত হয়ে পড়ে। এ কারণে গত ৩ বছর ধরে তিনি স্বাভাবিকভাবে চলাফেরা করতে পারেননি। বয়োবৃদ্ধ খ্যাতিমান এ মানুষটির জীবনের শেষ সময়গুলোর বেশিরভাগই কেটেছে বিছানায় শুয়ে। চলাফেরা করতেন হুইল চেয়ারে।

এ জাতীয় আরো সংবাদ