1. successrony@gmail.com : Mehedi Hasan Rony :
  2. arif_rashid@live.com : Arif Rashid : Arif Rashid
  3. meherunnesa3285@gmail.com : Meherun Nesa : Meherun Nesa
বুধবার, ৩০ নভেম্বর ২০২২, ০৫:৪১ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
সিরাজদিখানের বালুচরে বেদখল হওয়া সরকারী রাস্তা উদ্ধার! ফুটবল বিশ্বকাপ মঞ্চে লাল সবুজের পতাকা হাতে বাঙালী যুবক! সিরাজদিখানে গভীর রাতে গৃহবধূ প্রেমিকার ঘরে পরকীয়া প্রেমিক পাকরাও, থানায় হস্তান্তর! সিরাজদিখানে বঙ্গবন্ধু ফুটবল টুর্নামেন্টের ২য় সেমিফাইনাল অনুষ্ঠিত অতিরিক্ত টাকা না দিলে ফাইল ছুড়ে ফেলে দেন ভূমি সহকারী কর্মকর্তা আব্দুস সামাদ! যুবলীগের কেন্দ্রীয় যুব-সমাবেশে সিরাজদিখানের দুই হাজার যুবলীগ নেতাকর্মীর যোগদান সিরাজদিখানে মজুদ কৃত আলু নিয়ে বিপাকে কৃষক! সিরাজদিখান সাব রেজিষ্ট্রি অফিসে সক্রিয় প্রভাবশালী জালিয়াতি চক্রের দৌরাত্ম! সিরাজদিখানে গ্রীল কেটে স্বর্ণালংকার ও নগদ টাকাসহ ১০ লাখ টাকার মালামাল চুরি! বিড়াল হত্যার বিচার চেয়ে তরুণী থানায়। অভিযোগ শুনে পুলিশের হাসিঠাট্টা

ডা. সাবরিনার জামিন

দিনলিপি নিউজ ডেস্ক
  • আপডেট টাইম : রবিবার, ১৩ ডিসেম্বর, ২০২০
  • ৩৩৪ বার

তথ্য গোপন করে দ্বিতীয় এনআইডি করার অভিযোগে নির্বাচন কমিশনের (ইসি) দায়ের করা মামলায় জামিন পেয়েছেন জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউটের বরখাস্ত হওয়া চিকিৎসক ডা. সাবরিনা আরিফ চৌধুরী।

রোববার (২৩ ডিসেম্বর) বাড্ডা থানার সাধারণ নিবন্ধন কর্মকর্তা পুলিশের উপপরিদর্শক মাঝহারুল ইসলাম এ তথ্য নিশ্চিত করেছন।

গত ৩১ আগস্ট ডা. সাবরিনার বিরুদ্ধে গুলশান থানা নির্বাচন অফিসার মোহাম্মদ মমিন মিয়া বাদী হয়ে রাজধানীর বাড্ডা থানায় সাবরিনার বিরুদ্ধে এ মামলা দায়ের করেন।

মামলায় বলা হয়, মিথ্যা তথ্য দিয়ে দ্বৈত ভোটার হয়ে এবং একাধিক জাতীয় পরিচয়পত্র নিয়ে আইন অনুযায়ী অপরাধ করেছেন সাবরিনা। তার দু’টি এনআইডির তথ্য তুলে ধরে বিবাদীর বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিতে বলা হয়েছে।

ইসির মামলায় জামিন পেলেও কারামুক্ত হতে পারছেন না ডা. সাবরিনা। করোনাভাইরাসের নমুনা পরীক্ষা নিয়ে প্রতারণার মামলায় গ্রেপ্তার হয়ে কারাগারে আছেন তিনি। কারামুক্ত হতে হলে তাকে এ মামলাতেও জামিন পেতে হবে। সাবরিনাকে কারামুক্ত করতে আইনি লড়াই চলছে বলে জানিয়েছেন ডা. সাবরিনার আইনজীবী প্রণব কান্তি ভৌমিক।

২০১০ সালের জাতীয় পরিচয় নিবন্ধন আইনের ১৪ ও ১৫ ধারায় এ মামলা দায়ের করা হয়েছে। ১৪ ধারায় মিথ্যা তথ্য দেওয়ার অভিযোগ প্রমাণিত হলে সর্বোচ্চ এক বছরের কারাদণ্ড এবং ২০ হাজার টাকা অর্থদণ্ডের বিধান আছে। আর ১৫ ধারায় একাধিক জাতীয় পরিচয়পত্র নেওয়ার অভিযোগ প্রমাণিত হলেও একই শাস্তি হতে পারে।

এ জাতীয় আরো সংবাদ