1. successrony@gmail.com : Mehedi Hasan Rony :
  2. arif_rashid@live.com : Arif Rashid : Arif Rashid
  3. meherunnesa3285@gmail.com : Meherun Nesa : Meherun Nesa
সোমবার, ০৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০৭:৫৮ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জানুয়ারিতে সড়কে ঝরেছে ৫৮৫ প্রাণ অস্ট্রেলিয়া-বাংলাদেশ জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের আলোচনা সভা সিরাজদিখানে অযত্ন অবহেলায় নষ্ট হচ্ছে ভ্রাম্যমান লাইব্রেরী, দেখার কেউ নেউ! জনস্বার্থে দেওয়া স্ট্যাটাসকে কেন্দ্র করে সাংবাদিকের উপর হামলা! তৃণমূল সাংবাদিক মহল ক্ষুব্ধ। সিরাজদিখানে শেখ সাহেব খ্যাত রশিদ মাস্টারের মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে স্বরণ সভা! সিরাজদিখানে লাউ গাছ কেটে কৃষকের ক্ষতি সাধনের অভিযোগ! শেখ সাহেব খ্যাত রশিদ মাস্টারের ১৭ তম মৃত্যু বার্ষিকী আজ বিশ্বকাপ ফাইনাল ঘিরে ঢাকায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর নিরাপত্তা জোরদার! ফাইনালের আগে মেসিকে ছেলের আবেগঘন চিঠি! বিশ্বকাপঃ আজ সবকিছুই লিওনেল মেসি ও আরজেন্টিনার জন্য!

বাজেটে জীবন-জীবিকার রূপরেখা নেই

দিনলিপি নিউজ ডেস্ক
  • আপডেট টাইম : শুক্রবার, ৪ জুন, ২০২১
  • ১৮২ বার

প্রস্তাবিত বাজেটে জীবন ও জীবিকার যে কথা বলা হয়েছে তার স্বচ্ছ কোনো রূপরেখা নেই বলে মনে করে বেসরকারি গবেষণা সংস্থা সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগ (সিপিডি)। স্বাস্থ্য, কৃষি ও কর্মসংস্থানে যে পরিমাণ বরাদ্দ দেওয়ার কথা, প্রস্তাবিত বাজেটে তা দেওয়া হয়নি। সামষ্টিক অর্থনৈতিক কাঠামো দুর্বল।

আজ শুক্রবার রাজধানীর একটি হোটেলে প্রস্তাবিত বাজেট ২০২১-২২ পরবর্তী পর্যালোচনায় সিপিডি এসব কথা জানায়। সংবাদ সম্মেলনে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন সিপিডির নির্বাহী পরিচালক ফাহমিদা খাতুন। এ সময় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সিপিডির বিশেষ ফেলো মোস্তাফিজুর রহমান, গবেষণা পরিচালক খন্দকার গোলাম মোয়াজ্জেম, সিনিয়র রিসার্চ ফেলো তৌফিকুল ইসলাম খান।

সংবাদ সম্মেলনে মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, প্রস্তাবিত বাজেটটি অনুমিতির জায়গা থেকে তৈরি করা হয়েছে। এখানে রাজস্ব আদায়ে কাঠামোগত দুর্বলতা আছে। করোনাকালে সামাজিক নিরাপত্তায় কাঙ্ক্ষিত বরাদ্দ বাড়েনি। যেটা বেড়েছে সেটা সরকারি কর্মকর্তাদের পেনশনের কারণে বেড়েছে। একই সঙ্গে শিক্ষা ও স্বাস্থ্য খাতেও বরাদ্দ বাড়েনি। করোনাকালে নতুন করে যাঁরা কর্মহীন হয়েছেন, বাজেটে তাঁদের বিষয়ে কিছু উল্লেখ নেই।

মোস্তাফিজুর রহমান আরও বলেন, বাজেটের একটা দর্শন আছে। সেটি হলো আয়বৈষম্য, ভোগবৈষম্য, সংকটবৈষম্য দূর করার দর্শন। কিন্তু বাজেটে এই বৈষম্য দূর করার কোনো প্রতিফলন দেখা যায়নি।

সংবাদ সম্মেলনে খন্দকার গোলাম মোয়াজ্জেম বলেন, প্রস্তাবিত বাজেটে কর্মসংস্থান সৃষ্টির মতো গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্পে কাঙ্ক্ষিত বরাদ্দ দেওয়া হয়নি। উল্টো যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের বরাদ্দ কমিয়ে দেওয়া হয়েছে। বেসরকারি খাতকে প্রস্তাবিত বাজেটে যেসব সুযোগ-সুবিধা দেওয়া হয়েছে, তারা কি বিনিয়োগে আসবে? তিনি আরও বলেন, প্রস্তাবিত বাজেটে সাধারণ মানুষের জন্য কিছু করা উচিত ছিল সরকারের। কারণ সাধারণ মানুষের হাতে টাকা দিলে তাঁরা সেটা খরচ করতেন, এতে অর্থনীতিতে প্রাণচাঞ্চল্য ফিরে আসত। সে জন্য এখনো যে সময় আছে তার মধ্যে ব্যক্তি শ্রেণির করমুক্ত আয়সীমা বাড়ানোর দাবি করছে সিপিডি। যা প্রস্তাবিত বাজেটে অপরিবর্তিত রাখা হয়েছে।

এ জাতীয় আরো সংবাদ