1. successrony@gmail.com : Mehedi Hasan Rony :
  2. arif_rashid@live.com : Arif Rashid : Arif Rashid
  3. meherunnesa3285@gmail.com : Meherun Nesa : Meherun Nesa
বুধবার, ৩০ নভেম্বর ২০২২, ০৫:৪৯ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
সিরাজদিখানের বালুচরে বেদখল হওয়া সরকারী রাস্তা উদ্ধার! ফুটবল বিশ্বকাপ মঞ্চে লাল সবুজের পতাকা হাতে বাঙালী যুবক! সিরাজদিখানে গভীর রাতে গৃহবধূ প্রেমিকার ঘরে পরকীয়া প্রেমিক পাকরাও, থানায় হস্তান্তর! সিরাজদিখানে বঙ্গবন্ধু ফুটবল টুর্নামেন্টের ২য় সেমিফাইনাল অনুষ্ঠিত অতিরিক্ত টাকা না দিলে ফাইল ছুড়ে ফেলে দেন ভূমি সহকারী কর্মকর্তা আব্দুস সামাদ! যুবলীগের কেন্দ্রীয় যুব-সমাবেশে সিরাজদিখানের দুই হাজার যুবলীগ নেতাকর্মীর যোগদান সিরাজদিখানে মজুদ কৃত আলু নিয়ে বিপাকে কৃষক! সিরাজদিখান সাব রেজিষ্ট্রি অফিসে সক্রিয় প্রভাবশালী জালিয়াতি চক্রের দৌরাত্ম! সিরাজদিখানে গ্রীল কেটে স্বর্ণালংকার ও নগদ টাকাসহ ১০ লাখ টাকার মালামাল চুরি! বিড়াল হত্যার বিচার চেয়ে তরুণী থানায়। অভিযোগ শুনে পুলিশের হাসিঠাট্টা

নির্বাচনে রাজনৈতিক দলের চাপ ছিল না : সিইসি

দিনলিপি নিউজ ডেস্ক
  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ২৭ জানুয়ারী, ২০২২
  • ৯১ বার

প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নুরুল হুদা বলেছেন, নির্বাচন অনুষ্ঠানে কোনও রাজনৈতিক দলের চাপ ছিল না। কোনও রাজনৈতিক দলের প্রভাবে প্রভাবিত হইনি।

তিনি আরও বলেন, নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনের আগেও আমি বলেছিলাম, কোনও রাজনৈতিক দলের চাপ আগেও ছিল না, এখনও নেই।আজ বৃহস্পতিবার (২৭ জানুয়ারি) দুপুরে নির্বাচন ভবনের মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত এক বৈঠকে তিনি এমন মন্তব্য করেন। রিপোর্টার্স ফোরাম ফর ইলেকশন অ্যান্ড ডেমোক্রেসির (আরএফইডি) সঙ্গে এ বৈঠকে তিনি পাঁচ মেয়াদে তার কর্মযজ্ঞও তুলে ধরেন।

এক প্রশ্নের জবাবে সিইসি বলেন, ক্ষমতাসীন দলের একাধিক সংসদ সদস্য বিরুদ্ধে ফৌজদারি মামলা করেছি। আদালতে গিয়ে তাদের জামিন নিয়ে আসতে হয়েছে। অনেক মামলা বিচারাধীন আছে।

তিনি বলেন, কুমিল্লা ও নারায়ণগঞ্জে আমাদের যে অবস্থান অন্য কোনও নির্বাচনের চেয়ে একটুও অতিরিক্ত অবস্থান ছিল না। অন্য সবগুলো নির্বাচন যেভাবে করেছি, সেভাবেই হয়েছে। একটা জায়গায় আমাদের অতৃপ্তি আছে, কুমিল্লা ও নারায়ণগঞ্জ ছাড়া অন্য জায়গায় সংঘাত হয়েছে। সকাল থেকে আমরা দেখি পরিচ্ছন্ন ভোট হচ্ছে। যখন ফল ঘোষণা করা হয়, তখন হানাহানি হয়। এগুলো কাম্য না।

তিনি আরও বলেন, বন্দুক মাথায় রেখে একটা নির্বাচন করা যেতে পারে। চিরদিন সেটা হতে পারে না। রাজনৈতিক পরিমণ্ডলে নির্বাচন করা কঠিন। কিন্তু সম্ভব। আর এটাই একমাত্র পথ।বর্তমান নির্বাচন কমিশনের এ যাবৎকালের কার্যক্রম তুলে ধরে নুরুল হুদা বলেন, করোনাভাইরাস মহামারিতে নির্বাচন প্রক্রিয়ায় যেটা জনগণের ভোটাধিকার প্রক্রিয়া ও জনপ্রতিনিধিদের পরিবর্তনের প্রক্রিয়া, এটা আমরা বন্ধ রাখিনি। অ্যাট এনি কস্ট, ঝুঁকি নিয়ে…বর্তমান নির্বাচন কমিশনের প্রায় ২০ জন লোক করোনায় আক্রান্ত, এর মধ্যেও আমরা পিছিয়ে থাকিনি। নির্বাচন আমরা সম্পন্ন করেছি।

তিনি বলেন, নির্বাচন কমিশন অন আর্থ ইজ আ ভেরি কমপ্লেক্স ইনস্টিটিউশন্স। নির্বাচন কমিশন ওয়ান অব দ্য মোস্ট কমপ্লেক্স ইনস্টিটিউশন্স অন আর্থ এভরিহয়ার। সুতরাং এখানে আমাদের সমালোচনা থাকবেই। সেটা অত্যন্ত আগ্রহের সঙ্গে আমরা দেখি ও যেখানে গঠনমূলক সমালোচনা থাকে, সেগুলো আমরা রেসপন্স করি।

কিছু সমালোচনা থাকে একবারে ব্যক্তিকেন্দ্রিক মন্তব্য করে তিনি আরও বলেন, একজন সমালোচক আছেন বদিউল আলম মজুমদার। নির্বাচন কমিশনের কথা এলেই তিনি ‘এই নুরুল হুদা নির্বাচন কমিশন’ এ কথা বলে ফেলেন। এটার একটা ঘটনা আছে, সেটা বলা দরকার। আমরা যখন এখানে যোগদান করি, এর একদিন-দুদিন পর থেকে তিনি আমার সঙ্গে যোগাযোগ করা শুরু করেন। তিনি আমার পূর্ব পরিচিত। অপ্রস্তুত অবস্থায় একদিন তার সঙ্গে দেখা করলাম। তিনি অনেকগুলো লোক নিয়ে এলেন। তিনি বড় একটি বই দিলেন, বললেন আমরা এই কাজটা করেছি। বললেন, আমরা হলফনামা সংগ্রহ করে ছাপাই। তিনি যাওয়ার পরে কয়েকজন আমাদের জানালেন, তার বিরুদ্ধে প্রায় ১ কোটি টাকা অনিয়মের অভিযোগ আছে। কাজ না করে টাকা নেওয়ার অভিযোগ আছে। কমিশন সভায় তার বিরুদ্ধে আর্থিক অনিয়মের অভিযোগ আছে। তখন আমি একটু সাবধান হয়ে গেলাম।সিইসি ১/১১ সরকারের সময়কার এটিএম শামসুল হুদা কমিশনের সমালোচনাও করেন। তিনি বলেন, কয়েকদিন আগে শামসুল হুদা বলেছেন, এই নির্বাচন কমিশন আরও অনেক কাজ করতে পারতো কিন্তু করেনি। নানা কাজ করে বিতর্ক সৃষ্টি করেছে। তার এই কথা প্রধান নির্বাচন কমিশনার হিসেবে আমার কাছে মোটেই গ্রহণযোগ্য মনে হয়নি। নির্বাচন কমিশন অন আর্থ ইজ আ ভেরি কমপ্লেক্স ইনস্টিটিউশন।

সাবেক সিইসিকে উদ্দেশ করে তিনি আরও বলেন, নির্বাচন কমিশনের দায়িত্ব ৯০ দিনের মধ্যে নির্বাচন অনুষ্ঠান করা। সংসদ ভেঙে দেওয়ার পরে। তিনি নির্বাচন করেছেন ৬৯০ দিন পরে। এই সাংবিধানকি ব্যত্যয় ঘটানোর অধিকার তাকে কে দিয়েছে? তখন একটা সরকার ছিল, কোনও গণতন্ত্র ছিল না। ইমার্জেন্সি সরকার ছিল সে কারণে এটা করেছেন। গণতান্ত্রিক সরকারের সময় তো সেটা সম্ভব না।

আরএফইডি টক শীর্ষক এ বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের সভাপতি সোমা ইসলাম। সঞ্চালনায় ছিলেন সাধারণ সম্পাদক কাজী জেবেল।

এ জাতীয় আরো সংবাদ